সাংবাদিক আফরোনাজ পান্না কাউন্সিলর চিত্ত রঞ্জন দাসের কাছে হেনস্তায় শিকার হন।

সাংবাদিক আফরোনাজ পান্না কাউন্সিলর চিত্ত রঞ্জন দাসের কাছে হেনস্তায় শিকার হন।

 নিউজ ডেক্স
আপডেট: ২০২১-০৯-১১ , ০২:২৩ পিএম

সাংবাদিক আফরোনাজ পান্না কাউন্সিলর চিত্ত রঞ্জন দাসের কাছে হেনস্তায় শিকার হন। নড়াইল

 

জাগো বন্দর ২৪.নিউজ সাংবাদিক আফরোনাজ পান্না কাউন্সিলর চিত্ত রঞ্জন দাসের কাছে হেনস্তায় শিকার হন

ঢাকা দক্ষিণ সিটি ৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এবং সবুজবাগ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক লায়ন চি চিত্ত রঞ্জন দাসের কাছে আফরোনাজ পান্না নামে এক মহিলাকে নিজ কার্যালয়ে হেনস্তা করার চেষ্টা করেন।

 

আফরোনাজ পান্না নামে এক মহিলা জানান রাজার বাগ কালীবাড়ি আমার শ্বশুরের দোকানের পাশের দোকানদার দোকানের সংস্কার করানোর জন্য কাউন্সিলর এর অনুমতি চাইতে গেলে "লায়ন চি চিত্ত রঞ্জন দাস" দোকানদারের কাছে ৪০ হাজার টাকা দাবি করেন।

 

এসময় দোকানদার এই বিষয়টি আমার শ্বশুরকে অবগত করলে আমি বলি আমি বিষয়টি দেখছি সেই মোতাবেক আমি  গতকাল রাতে ৭ টা ৪৫ মিনিটে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর চিত্তরঞ্জন দাস কে ফোন করি তিনি আমাকে রাত নয়টায় থেকে সাড়ে নয়টার মধ্যে ওনার রাজারবাঘ কার্যালয়ে যেতে বলেন।

 

আমি আমার স্বামী "সাইদুল ইসলাম" সহ রাত পৌনে দশটায় "লায়ন চি চিত্ত রঞ্জন দাস" কাউন্সিলর কার্যালয় যাই এবং টাকা চাওয়ার সত্যতা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন তিনি ৪০ হাজার টাকা চেয়েছেন।

 

তখন আমি বললাম যে ঐ দোকানদার গরিব মানুষ কিছু কম রাখেন এ কথা বলার পরে উনি আমাকে পাশের কক্ষে যেতে বলেন উনার সামনে দুই তিনজন লোক ছিল তাদের সাথে মিটিং করে আমাকে ডাকবেন পাশের কক্ষে ঢোকার একটু পরেই উনি রুমে ঢুকে দরজা লক করে দেন এবং আমাকে জানানোর জন্য বলেন এরপর আমাকে নানা ধরনের প্রস্তাব করেন আমাকে জড়িয়ে ধরে স্পর্শ কাতর স্থানে স্পর্শ করেন তখন আমি বাধা দেই এবং কান্না করি পরে উনি পরের দিন যাওয়ার জন্য কসম কাটান এরপর আমি কোনরকমে নিজেকে রক্ষা করে উনার কার্যালয় থেকে বেরিয়ে আসি।