ঠাকুরগাঁওয়ে তরমুজের দাম ক্রেতার সাধ্যের বাইরে 

  নিউজ ডেক্স
আপডেট: ২০২২-০৩-৩১ , ০৪:৪৭ পিএম

ঠাকুরগাঁওয়ে তরমুজের দাম ক্রেতার সাধ্যের বাইরে 

মোঃ শফিকুল ইসলাম দুলালঃ  ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ 

ঠাকুরগাঁওয়ে আগাম তরমুজের দাম ক্রেতার সাধ্যের বাইরে। তাই অনেকে শুধু  দাম শুনে চলে যাচ্ছে তরমুজ আর নেওয়া হচ্ছে না সাধারণ মানুষের। 
ঠাকুরগাঁওয়ের বিভিন্ন বাজারে দেখা মিলছে আগাম জাতের তরমুজ । হালকা গরমে তৃষ্ণা নিবারণের জন্য  এ ফলটির বেশ চাহিদা রয়েছে ক্রেতাদের কাছে। যে কারণে আগাম তরমুজের  দাম ক্রেতাদের সাধ্যের বাইরে চলে গেছে বলে জানিয়েছেন ঠাকুরগাঁওয়ের ফল ব্যবসায়ীরা।

ঠাকুরগাঁওয়ের ফল ব্যবসায়ীরা জানান, গরমকালের তরমুজ এখনো বাজারে আসেনি।
সেগুলো মিলবে আরও দেড়/দুই মাস পর। এখন যেগুলো পাওয়া যাচ্ছে সেগুলো আগাম জাতের তরমুজ। বাজারে আগাম তরমুজ উঠেছে কুয়াকাটাসহ বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ঠাকুরগাঁওয়ের বাজারে নিয়ে আসা হয়েছে এই তরমুজ গুলো। 
তাই একটু বেশি দামে বিক্রি করা হচ্ছে। তবে এখন যে দামে বিক্রি হচ্ছে গ্রীষ্মকালে এলে এর দাম আরও কমবে।
ঠাকুরগাঁও রানীশংকৈল উপজেলার তরমুজ ব্যবসায়ী নওশাদ আলী বলেন, কুয়াকাটাসহ বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ঠাকুরগাঁওয়ের বাজারে এ আগাম জাতের তরমুজ আসছে।

 আব্দুর রহমান নামের এক ব্যবসায়ী বলেন,  বাজারে যেসব আগাম জাতের তরমুজ পাওয়া যাচ্ছে তার মধ্যে উল্লেযোগ্য হলো-  বালি, ব্লাক সুইট,  কালো  গ্রামীণ, ব্লাক লায়ন,বিগ ফেমেলি ও রোয়েল ফেমেলি, আনারকলি, ব্লাকবেবি,  চায়না-২, এশিয়ান-২।

ঠাকুরগাঁওয়ের খুচরা তরমুজ বিক্রেতা কবির  জানান, আগাম জাতের এসব তরমুজ কোনটাই ঠাকুরগাঁওয়ে হয়নি। এগুলো কুয়াটাকাসহ বেশ কিছু এলাকা থেকে আনা হয়েছে। বাজারে এগুলোর চাহিদা অনেক। প্রতি কেজি তরমুজ ৬০ টাকায় বিক্রি করছেন।

ভ্যানে ভ্রাম্যমাণ তরমুজ বিক্রেতা আল-আমিন বলেন, প্রতি কেজি তরমুজ প্রথম দিকে ৭০-৮০ টাকা করে বিক্রি করেছি। এখন ৬০-৬৫ টাকায় বিক্রি করছি। দাম এখন একটু বেশি হলেও সিজনের তরমুজ বাজারে আসলে কমে যাবে।

সামিউল নামের এক ক্রেতা বলেন, বাজারে প্রথম তরমুজ উঠেছে যা দেখে ভালো লেগেছে। ভালো-মন্দ কি হবে জানি না। তবু কিনলাম। যদিও দাম একটু বেশি। তবে আমরা আশা করছি রমজান মাসের পূর্বেই এর দাম শিথিল হয়ে আসবে।